বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০১৯ ০৫:৩২:৩৬ এএম

কুমিল্লা সদর দক্ষিন থানা কমপ্লেক্স যেন পাখিদের অভয়ারণ্য!!!

Shaifur Rahman | সম্পাদকীয় | শুক্রবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৬ | ০২:১৬:০৪ পিএম

প্রকৃতি বিপন্ন প্রায় বিশ্বে এখন বিপন্ন প্রজাতির পাখি দেখা দুরহ ব্যাপার। জঙ্গল দেখেনি অনেক বছর, আমার সাথে সুর মেলাবেন শতকরা ৫০ ভাগ লোক। গাছ ভর্তি পাখির কিচির মিচির শুনা তো নিতান্তই ভাগ্যের ব্যাপার।

প্রকৃতি ভালবাসার লোকের অভাব এখন লক্ষণীয়। বাণিজ্যিক দুনিয়ায় সম্পদের নেশায় মানুষ প্রকৃতিকে উজাড় করে কলকারখানায় রুপান্তরে ব্যস্ত। প্রতিবছর আন্তর্জাতিক ভাবে প্রকৃতি প্রতিপালন বিষয়ক বিভিন্ন সভা সেমিনার বৈঠক হচ্ছে। এসব বৈঠকে বিজ্ঞ প্রকৃতি বিজ্ঞানীদের ভয়ঙ্কর তথ্য সবাইকে নাড়া দিয়ে দেয়।

প্রকৃতির ধ্বংসের কারনে বিশ্বে মানব কুলের ধ্বংস অনিবার্য স্বীকৃতি দেয়া হয় ওইসব সেমিনারে। এর পরেই জাতিসংঘের মাধ্যমে কলকারখানার বায়ু দূষণে ক্ষতিগ্রস্থ দেশ গুলোকে দেয়া হয় প্রচুর পরিমানে আর্থিক সাহায্য।বিশেষ করে নিন্ম মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত দেশ গুলি এই সুবিধা নিয়ে থাকে । কিন্তু দুঃখের বিষয় এই অর্থ প্রাপ্তির পরেও এসব দেশ গুলি প্রকৃতি সংরক্ষণের ব্যাপারে কার্যত কোন উদ্দ্যেগ নিতে দেখা যায়না।

গাছপালা, পশু পাখি এই সবি প্রকৃতির অংশ, তার মাঝে পাখিদের অনেক আচরণ আমরা মানব জাতি খুব আনন্দের সাথে উপভোগ করে থাকি।
এই কাঠ পাথরের শহর থেকে শুরু করে গ্রাম পর্যন্ত এখন আর সেই পাখির সুরে প্রাণ ভরেনা।

জেনে অবাক হবেন এই পাখির গুঞ্জন ও কিচির মিচির শব্ধে প্রাণ জুড়ে যায় কুমিল্লা সদর দক্ষিণ থানার পুলিশদের। গত কয়েক বছর ধরে এখানে বাস করছে কয়েক হাজার চড়ুই পাখী। সারাক্ষণ কিচির মিচির শব্দে পুলিশদের মনে সব সময় আনন্দ সঞ্চার করে আসছে এই পাখী গুলি।

পুলিশদের পাষাণী মন, এই ধারণা প্রায় ভুল প্রমানিত হবে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ থানায় গেলে।
উপজেলা কমপ্লেক্স এর গা ঘেঁষে অবস্থিত এই থানা। গাছ গাছালিতে ভরপুর এই থানার স্থাপনা। অনেকটা মনে হবে বনের ভিতরেই থানা, এ এক অপরুপ দৃশ্য।

বর্তমান ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম পাখিদের নিয়ে অনেক গল্প করতে গিয়ে নিজেকে গর্বিত করে তুলে ধরে বলেন, এই পাখির কিচির মিচিরে আমাদের প্রাণ ও মেজাজ ঠাণ্ডা ও নমনীয় থাকে। এখানকার হাজারো পাখির কলরবে আমাদের কর্মক্ষেত্রে শক্তি বাড়ায় ।
ভাল কাজে উৎসাহ যোগায়। যে মানুষ প্রকৃতিকে ভাল বাসতে পারেনা সে মানুষ, মানুষকে ভাল বাসতে পারেনা।

ওসি নজরুল পাখীদের প্রেমে পড়েছেন, এই প্রেম ও ভালবাসা দিয়ে ওই এলাকার মানুষের ভালবাসা অর্জন করার প্রত্যয়ও করলেন।
সন্ত্রাস মুক্ত ও মাদক মুক্ত রাখার অঙ্গীকার করলেন এই মানুষটি।

পুলিশের প্রতি মানুষের ধারণা পরিবর্তনে কাজ করে যাচ্ছেন বলে জানালেন ওসি নজরুল ইসলাম।
পাখীদের রক্ষনাবেক্ষনে সব ধরণের চেষ্টা করে যাবেন বলে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন এই পুলিশ অফিসার।
সব মানুষ যদি প্রকৃতিকে ভালবাসা শুরু করে তাহলে নিশ্চিত, মানুষের প্রতি মানুষের ভক্তি ও ভালবাসা আবারো স্থাপিত হবে।

আশা করছি এমন ভালবাসার দৃষ্টান্ত যেন সব যায়গায় তৈরি হয়। তবেই আমরা শান্তি ফিরিয়ে আনতে পারবো, শান্তিতে থাকবে আমাদের প্রজন্ম।

সাইফুর রহমান সাগর
সম্পাদক, ইউরো বিডি নিউজ




খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন